আন্তর্জাতিক ডেস্ক ::
ভারতের তামিলনাড়ুতে সনাতন ধর্মে সাম্প্রদায়িক বৈষম্যের অভিযোগ এনে দলিত জনগোষ্ঠীর ৪৩০ জন ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। আরও বহুজন ইসলামে দীক্ষিত হওয়ার প্রক্রিয়ায় রয়েছেন।

রাজ্যের কোয়েম্বাতোর জেলার মেত্তুপালায়ম শহরের ওই ৪৩০ জন সম্প্রতি আইনি প্রক্রিয়ায় ইসলাম গ্রহণ করেছেন। বিষয়টি সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন দলিতদের সংগঠন ‘তামিল পুলিগাল কাতচি’ নামের একটি সংগঠনের রাজ্য সম্পাদক ইলাবেনিল। তার বরাত দিয়ে বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) এ খবর দিয়েছে ইন্ডিয়া টুডে।

সংবাদমাধ্যম জানায়, গত ২ ডিসেম্বর মেত্তুপালায়ম শহরে ভারী বর্ষণে একটি দেয়াল ধসে তিনটি বাড়ির ওপর পড়ে। এতে দলিত সম্প্রদায়ের ১৭ জন নিহত হন। তাদের মধ্যে ছিলেন ১১ নারী ও তিন শিশু।

দলিত সম্প্রদায়ের লোকেরা অভিযোগ করেন, তাদের বর্ণের মানুষ যেন উঁচু বর্ণের লোকেদের এলাকায় যেতে না পারেন, সেজন্য দেয়ালটি বানান প্রভাবশালী এক ব্যক্তি। দুর্ঘটনার পর সেই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হলেও পরে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। অন্যদিকে আন্দোলনে নামে দলিতদের সংগঠন ‘তামিল পুলিগাল কাতচি’। কিন্তু প্রশাসন গ্রেফতার করে ওই সংগঠনের সভাপতি নাগাই তিরুভল্লুয়ানকে।

দলিত সম্প্রদায়ের তিন ঘরের ওপর ধসে পড়েছিল জাতের ‘দেয়াল’, এতে মৃত্যু হয় ১৭ জনের সামাজিক ও প্রশাসনিকভাবে এভাবে বৈষম্যের শিকার হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে দলিতরা বৈঠকে বসে ধর্মান্তরিত হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

ধর্মান্তরিত হওয়ার পেছনের কারণ হিসেবে মার্ক্স নামে এক যুবক বলছিলেন ‘সর্বত্র বৈষম্য’র কথা। বর্তমানে মোহাম্মদ আবুবকর নামে পরিচিত ওই যুবক বলেন, ‘বিরাজমান বর্ণবাদী অবিচার ও অস্পৃশ্যতার মতো ধারণা আমাদের শেষ করে দিচ্ছিল। যেমন দলিতরা দুর্গা মন্দিরে যেতে পারবে না। চা দোকানেও ঢুকতে পারবে না। এমনকি আমরা সরকারি বাসেও একসঙ্গে বসতে পারি না। তাই আমরা ইসলাম গ্রহণ করেছি।’

শরৎ কুমার থেকে ধর্মান্তরিত হয়ে আব্দুল্লাহ নাম গ্রহণ করা আরেক যুবক বলেন, ‘যখন আমাদের ১৭ জন মারা গেল, কোনো হিন্দু একটা শব্দ উচ্চারণ করলো না। শুধু মুসলিম ভাই-বোনেরা এসে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। ওই দুর্যোগে আমাদের মুসলিম ভাইরাই আশ্রয় দিয়েছে। হিন্দুরা আমাদের চেয়েও দেখেনি। হিন্দুদের যেকোনো মন্দিরে কি আমি ঢুকতে পারবো? কিন্তু আমি সব মসজিদে ঢুকতে পারবো। ধর্মান্তরিত হওয়ার পর আমি পাঁচটি মসজিদ ঘুরেছি। সেখানে সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে দোয়া করেছি। কিন্তু আমি কি দুর্গা মন্দিরে গিয়ে পূজা করতে পারবো?’ ‘তামিল পুলিগাল কাতচি’র রাজ্য সম্পাদক ইলাবেনিল জানিয়েছেন, প্রথমে ৪৩০ জন ইসলাম গ্রহণ করেছেন, পর্যায়ক্রমে ওই জনপদে থাকা ৩ হাজার মানুষ ধর্মান্তরিত হবেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে